অধ্যক্ষ মাজেদ আহমদ চঞ্চলের বিরুদ্ধে ভিত্তিহীন অপপ্রচার! সর্ব মহলের প্রতিবাদ

প্রকাশিত: 12:08 AM, September 11, 2020

অধ্যক্ষ মাজেদ আহমদ চঞ্চলের বিরুদ্ধে ভিত্তিহীন অপপ্রচার! সর্ব মহলের প্রতিবাদ
মীম সালমান: সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলার লুৎফর রহমান স্কুল এন্ড কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ, লেখক, গবেষক ও প্রাবন্ধিক জনাব মাজেদ আহমদ চঞ্চলের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন অভিযোগ দায়ের করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে বেপরোয়া হয়ে উঠছে একদল কুচক্রী মহল। কুচক্রী মহলরা অধ্যক্ষ মাজেদ আহমদ চঞ্চলের বিরুদ্ধে অসদাচরণ, স্বেচ্ছাচারিতা, বিশৃঙ্খলা, অদক্ষতা, অযোগ্যতা, দুর্নীতি এবং আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ এনে জকিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে বলে জানা যায় ।
কুচক্রীদের এমন দায়ের করা অভিযোগের সংবাদ পেয়ে ফুসে উঠেছে সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীরা। এবং হতাশ প্রকাশ করছে স্থানীয়রা। তাদের দাবি অধ্যক্ষ মাজেদ আহমদ চঞ্চল হলেন মানুষ গড়ার সফল একজন কারিগর, তিনি একজন প্রেরণার বাতিঘর, যার মেধাভিত্তিক কলাকৌশলের ফলে প্রতিষ্ঠানটি আজ বিশ্বের আনাচে-কানাচে সুনাম সুখ্যাত নিয়ে পরিচিত। অধ্যক্ষ মাজেদ আহমদ চঞ্চলের নেতৃত্বে অল্পদিনে অনেক কৃতিত্ব অর্জন করেছে এই কলেজটি। তার এই জনপ্রিয়তায় প্রতিহিংসার সাগরে ডুবছে অভিযোগ কারীরা। তাদের অভিযোগগুলো মিথ্যা বানোয়াট ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত।
এদিকে সাবেক অধ্যক্ষ মাজেদ আহমদ চঞ্চলের বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচারের প্রতিবাদে এবং অভিযোগ কারীদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে স্কুল এন্ড কলেজের বর্তমান অধ্যক্ষ জনাব ছালিক আহমেদ চৌধুরী বাদী হয়ে জকিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর একটি মানহানির অভিযোগ দায়ের করেন। লিখিত অভিযোগে জনাব ছালিক আহমদ চৌধুরী বলেন, এই প্রতিষ্ঠানের সাবেক অধ্যক্ষ জনাব মােঃ মাজেদ আহমেদের নেতৃত্বে সিলেট অঞ্চলে সর্বাগ্রে এই প্রতিষ্ঠানে কারিগরি ও উচ্চ মাধ্যমিক কলেজ শাখা চালু করে অত্যন্ত সুনামের সাথে পরিচালিত হয়ে আসছে । মাত্র ২০০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে ১৯৯৮ সনে এই প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক হিসাবে দায়িত্ব গ্রহণ করে তাঁর সততা, মেধা ও পরিশ্রমের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটির স্কুল শাখার প্রভুত উন্নয়নের।পাশাপাশি ২০০০ সনে কারিগরি ও ২০১২ সনে কলেজ শাখাটি খোলে প্রতিষ্ঠানটি কে ১৪ শতাধিক ছাত্র ছাত্রীর কর্মমুখর প্রতিষ্ঠানে রুপান্তরিত করেছেন । তাঁর নিয়মিত উপস্থিতি, কর্মদক্ষতা, সামাজিক সম্পৃক্ততার স্বীকৃতি হিসেবে তিনি ২০১৯ সনে সরকারি ভাবে জকিগঞ্জ উপজেলার শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্টান প্রধান (মাধ্যমিক) নির্বাচিত হয়ে।উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিজন কুমার সিনহার নিকট হতে ক্রেস্ট গ্রহণ করেছেন ।শিক্ষক স্বল্পতা ও অবকাঠামােগত অপ্রতুলতার কারণে দু’এক বছর কম হলেও, অধিকাংশ সময়ই প্রতিষ্ঠানে অনেক ভালাে ফলাফল হয়ে আসছে। বিগত ২০১৪ হতে ২০২০ পর্যন্ত ফলাফল বিশ্লেষণে দেখা যায় যে, জেএসসি পরীক্ষায় সর্বোচ্চে ৯৩.০৩% (গড়ে ৮৫-৫৩%), এসএসসি পরীক্ষায় সর্বোচ্চ ৮৯.৫৫% (গড়ে ৭২.৫৭%) ও এসএসসি ভোকেশনাল পরীক্ষায় ৯৫.৭৯% (গড়ে ৮০.১২%) শিক্ষার্থী পাশ করেছে। প্রতিষ্ঠানের সদ্য সাবেক অধ্যক্ষ মাে: মাজেদ আহমেদ ৩৭ বছরের একজন স্বনামধন্য, অভিজ্ঞ শিক্ষক । তিনি অত্যন্ত সততা, সুনাম, কর্মদক্ষতা ও আন্তরিকতার সাথে সুদীর্ঘ ২৩ বছর প্রধান শিক্ষক হিসেবে এই ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠানটি পরিচালনা করেছেন । এই দীর্ঘ সময়ে তার বিরুদ্ধে ছাত্র, শিক্ষক অভিভাবক মন্ডলী গভর্নিংবডি, এলাকাবাসী বা উর্ধতন কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে কোন ধরনের অভিযােগ উত্তাপিত হয়নি বরং তার জনপ্রিয়তা ছিল সর্বস্থরে । এছাড়া বিভিন্ন শিক্ষামূলক, সামাজিক ও উন্নয়ন কর্মকান্ডে তার গৌরবজনক কাজে সম্পৃক্ততা রয়েছে। মানবসম্পদ উন্নয়নে কাজ করা, সিলেট বিভাগের শ্রেষ্ঠ বেসরকারি সংস্থা সীমান্তিকের চেয়ারপার্সন হিসেবে অবৈতনিক ভাবে সমাজ সেবায় কাজ করেছেন । অতএব : মাজেদ আহমদ চঞ্চলের বিরুদ্ধে অভিযোগ কারীদের অভিযোগ সম্পুর্ন মিথ্যা বানোয়াট ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত। তাদের অভিযোগের সাথে বাস্তবতার কোন মিল নেই। তাই তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত পূর্বক যথাযত আইনি ব্যবস্থা নেয়ার আহবান জানান অধ্যক্ষ ছালিক আহমদ চৌধুরী সহ কলেজের সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীরা।

 

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বশেষ ২৪ খবর