রাজস্বের মাধ্যমে রাষ্ট্রের উন্নয়ন কার্যক্রম পরিচালিত হয় : কাস্টমস কমিশনার

প্রকাশিত: ৪:১২ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১, ২০২০

রাজস্বের মাধ্যমে রাষ্ট্রের উন্নয়ন কার্যক্রম পরিচালিত হয় : কাস্টমস কমিশনার

বিজয়ের কণ্ঠ ডেস্ক
কাস্টমস এক্সাইজ এন্ড ভ্যাট কমিশনারেট, সিলেট কার্যালয়ে নবনিযুক্ত কমিশনার মোহাম্মদ আহসানুল হকের সাথে দি সিলেট চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি’র নেতৃবৃন্দের এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

 

মঙ্গলবার (১ ডিসেম্বর) সকাল ১১ টায় দি সিলেট চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি’র উদ্যোগে নিজস্ব কার্যালয়ে এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

 

সিলেট চেম্বারের সভাপতি আবু তাহের মো. শোয়েব এর সভাপতিত্বে সভায় নবনিযুক্ত কাস্টমস কমিশনার মোহাম্মদ আহসানুল হক বলেন, রাজস্ব রাষ্ট্রের অধিকার। নাগরিকদের প্রদানকৃত রাজস্বের মাধ্যমে রাষ্ট্রের উন্নয়ন কার্যক্রম পরিচালিত হয়। চলমান কোভিড-১৯ পরিস্থিতির কারণে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মত বাংলাদেশের অর্থনীতিও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এ ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে বর্তমান সরকার আন্তরিক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। তিনি এ প্রচেষ্টায় সকলকে অংশীদার হওয়ার আহবান জানান। তিনি অগ্রিম ভ্যাট প্রদানকারীদের রিফান্ডের ব্যবস্থা দ্রুততম সময়ের মধ্যে করার ব্যবস্থা করবেন বলে জানান। এছাড়াও যারা অনলাইনে ভ্যাট রিটার্ন দাখিল করতে পারবেন না তারা ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে ভ্যাট রিটার্ন দাখিল করতে পারবেন বলে অবহিত করেন। তিনি ভ্যাট বিষয়ে ব্যবসায়ীদের সচেতনতা বৃদ্ধিতে কর্মশালা আয়োজন করবেন বলে জানান। তিনি সিলেটে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা পূরণে সিলেট চেম্বার অব কমার্স ও ব্যবসায়ীদের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন এবং তার দায়িত্বকালে ব্যবসায়ীরা রাজস্ব প্রদানে যাতে কোন ধরণের হয়রানির শিকার না হন সেবিষয়ে লক্ষ্য রাখার আশ্বাস প্রদান করেন।

 

সিলেট চেম্বারের সভাপতি আবু তাহের মো. শোয়েব মতবিনিময় সভায় মিলিত হওয়ার জন্য নবনিযুক্ত কাস্টমস কমিশনারকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, সিলেট চেম্বার অব কমার্স ব্যবসায়ীদের স্বার্থ সংরক্ষণের পাশাপাশি সরকারের ভ্যাট, ট্যাক্স প্রদানে ব্যবসায়ীদের উদ্বুদ্ধ করার লক্ষ্যে কাজ করে থাকে। সিলেট চেম্বারের এসব কার্যক্রমের জন্য ইতোপূর্বে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের পক্ষ থেকে একাধিকবার সিলেট চেম্বারকে সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে। তিনি বলেন, চলমান কোভিড-১৯ মহামারীর কারণে ব্যবসা-বাণিজ্যে যে মন্দার সৃষ্টি হয়েছে তা কাটিয়ে উঠতে বেশ কিছুদিন লাগবে। তিনি এসময়ে ব্যবসায়ীদের উপর কোন ধরণের চাপ সৃষ্টি না করার আহবান জানান। এছাড়াও তিনি রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা পূরণে নিয়মিত ভ্যাট প্রদানকারী ব্যবসায়ীদের উপর চাপ সৃষ্টি না করে ভ্যাটের পরিধি বৃদ্ধির অনুরোধ জানান। তিনি ব্যবসায়ীদের সাথে কোন ধরণের ভুল বোঝাবুঝি সৃষ্টি হলে তা চেম্বারের মাধ্যমে নিরসনের অনুরোধ জানান।

 

সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট, সিলেট এর অতিরিক্ত কমিশনার মোহাম্মদ সফিউর রহমান, যুগ্ম কমিশনার মোহাম্মদ মিনহাজ উদ্দিন পাহলোয়ান, সহকারী কমিশনার প্রভাত কুমার সিংহ, সিলেট চেম্বারের সিনিয়র সহ সভাপতি চন্দন সাহা, সহ সভাপতি তাহমিন আহমদ, পরিচালক মাসুদ আহমদ চৌধুরী, মো. এমদাদ হোসেন, মো. সাহিদুর রহমান, পিন্টু চক্রবর্তী, এহতেশামুল হক চৌধুরী, ফালাহ উদ্দিন আলী আহমদ, মো. আতিক হোসেন, আলীমুল এহছান চৌধুরী, ওয়াহিদুজ্জামান চৌধুরী, খন্দকার ইসরার আহমদ রকী, সাবেক সিনিয়র সহ সভাপতি মো. লায়েছ উদ্দিন, সিলেট চেম্বারের সচিব গোলাম আক্তার ফারুক, যুগ্ম সচিব নূরানী জাহান কলি, সহকারী সচিব সানু উদ্দিন রুবেল প্রমুখ। সভা সঞ্চালনা করেন সিলেট চেম্বারের সিনিয়র অফিসার মিনতি দেবী।

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বশেষ ২৪ খবর