এবার নতুন আসনে ভোট দেবেন বালাগঞ্জবাসী

প্রকাশিত: 3:45 PM, December 24, 2018

এবার নতুন আসনে ভোট দেবেন বালাগঞ্জবাসী

মোমিন মিয়া, বালাগঞ্জ থেকে
নবম ও দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বালাগঞ্জের ভোটাররা সিলেট-২ ও ৩ আসনে বিভক্ত থেকে ভোট প্রদান করেন। এছাড়া বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনগুলোতে বালাগঞ্জবাসী সিলেট-২ আসনের সাথে যুক্ত ছিলেন। কিন্তু একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বালাগঞ্জবাসী সিলেট-৩ আসনের এমপি বাছাইয়ে ভূমিকা রাখবেন।

অতীতে দক্ষিণ সুরমা ও ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা নিয়ে ছিল সিলেট-৩ আসন। চলতি বছর সংসদীয় আসনের সীমানা পরিবর্তনের মাধ্যমে বালাগঞ্জকে সিলেট-৩ আসনে যুক্ত করার ফলে এই আসনটির আয়তন বৃদ্ধি পায়। বিশাল আয়তনের এই আসনে নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণায় প্রার্থীরা অনেকটাই হাপিয়ে ওঠেছেন বলে তাদের কর্মী-সমর্থকরা জানিয়েছেন। নতুন আসনে ভোট দেয়ার বিষয়ে ভোটারদের পক্ষ থেকে আগ্রহ-অনাগ্রহ দুটোই প্রকাশ পাচ্ছে।

তবে ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থী ও দলীয় নেতাকর্মীরা বলছেন, সংসদীয় আসন পরিবর্তন হলেও ভোটের মাঠে এর কোনো প্রভাব পড়বে না। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এই আসনে বিভিন্ন দলের ছয় জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন।

মহাজোট থেকে নৌকা প্রতীক নিয়ে টানা দুইবারের বর্তমান এমপি মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী, বিএনপি-ঐক্যফ্রন্ট থেকে ধানের শীষের প্রার্থী বিএনপির কেন্দ্রীয় সদস্য ও সাবেক সংসদ সদস্য শফি আহমদ চৌধুরী, উন্মুক্ত আসন হিসেবে মহাজোটের লাঙ্গল প্রতিকে প্রার্থী হয়েছেন সিলেট জেলা জাপা’র সদস্য সচিব উসমান আলী, খেলাফত মজলিসের দিলওয়ার হোসাইন দেয়াল ঘড়ি প্রতীক, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের হাফিজ মাওলানা আতিকুর রহমান রিকসা প্রতীকও ইসলামী আন্দোলনের আব্দুল মতিন বাদশা হাত পাখা প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন।

৩০ডিসেম্বর বালাগঞ্জের ছয়টি ইউনিয়নের ৩৪টি ভোট কেন্দ্রে ৮০ হাজার ৬শ ৯ জন ভোটার তাদের ভোট প্রদান করবেন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৪০ হাজার ২শ ২৮ ও নারী ভোটার ৪০ হাজার ৩শ ৮১ জন। এছাড়া সিলেট-৩ আসনে মোট ৩ লাখ ২২ হাজার ২৯৩ জন ভোটার রয়েছেন, এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১লাখ ৬২ হাজার ৮৬৮ এবং নারী ভোটার ১লাখ ৫৯ হাজার ৪২৫ জন।

এই আসনের ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলায় মোট ভোটার ৭০ হাজার ৬শ ৯২ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৩৬ হাজার ৪শ ১০ ও নারী ভোটার ৩৬ হাজার ২শ ৪২ জন, ভোট কেন্দ্র-৩৬। দক্ষিণ সুরমা উপজেলায় মোট ভোটার ১লক্ষ ৭০ হাজার ২শ ৯১ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৮৬ হাজার, ৭শ ৯৯ ও নারী ভোটার ৮৩ হাজার, ৪শ ৯২ জন, ভোট কেন্দ্র-৭৮।

এদিকে, মহাজোটের প্রার্থী মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী পুনর্নির্বাচিত হয়ে উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছেন।

অন্যদিকে, তিন যুগ ধরে নির্বাচন করে আসা বিএনপি-ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী সাবেক এমপি শফি আহমদ চৌধুরীসহ তাঁর দলীয় নেতাকর্মী ও সমর্থকেরা সুষ্ঠু নির্বাচন হলে তারা এই আসনটি পুনরুদ্ধারের প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন। এক সময় এই আসনটি জাতীয় পার্টির ঘাঁটি ছিল। তাই জাতীয় পার্টির প্রার্থীও আসনটি ফিরে পেতে আশাবাদি।

  •  

সর্বশেষ ২৪ খবর