গীতা শিক্ষা কমিটির বিভাগীয় প্রতিনিধি সম্মেলন

প্রকাশিত: 5:27 PM, February 8, 2020

গীতা শিক্ষা কমিটির বিভাগীয় প্রতিনিধি সম্মেলন

ডেস্ক প্রতিবেদন : বাংলাদেশ পুলিশ সিলেট রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি শ্রী জয়দেব কুমার ভদ্র বলেছেন, গীতা কিংবা অন্য ধর্মের মূল কথা হচ্ছে মানুষ যেন ভালো থাকে, সমাজে যেন শান্তি-শৃঙ্খলা থাকে। গীতা একজন মানুষের জীবনের গাইডলাইন, ফিলোসফি। একটা সমাজ এবং জীবন ভালো থাকার দর্শন। আমাদের গীতা বুঝা এবং নিজের জীবনে তার নির্দেশ পরিচর্যা করা দরকার। ধর্মের মূল শর্ত মানুষকে ভালোবাসা, বিভেদ না করা, হিংসা-বিদ্বেষ থেকে নিজেকে মুক্ত রাখা।
বাংলাদেশ গীতা শিক্ষা কমিটি-বাগীশিক সিলেট জেলা সংসদ আয়োজিত সিলেট বিভাগীয় প্রতিনিধি সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। গতকাল শুক্রবার সিলেট জেলা পরিষদের অডিটোরিয়ামে দিনব্যাপী সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন বাগীশিক সিলেট জেলা সংসদের সভাপতি ডা. মালা রাণী দে। আশীর্বাদক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাগীশিক কেন্দ্রীয় সংসদের প্রধান উপদেষ্টা এডভোকেট তপন কান্তি দাশ। মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জলন করেন রামকৃষ্ণ মিশন আশ্রম সিলেট-এর শ্রীমৎ স্বামী হরিদাসানন্দজী মহারাজ। শ্রীমদ্ভগবদ গীতা পাঠ ও পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন বাগীশিক কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি শ্রী দেশপ্রিয় চৌধুরী বিনয়। পাপিয়া চৌধুরীর পরিচালনায় অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) ফয়সল মাহমুদ। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন অধ্যাপক এল নন্দলাল সিংহ, অধ্যাপক বিজিত কুমার দে, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ সিলেট জেলার সভাপতি শ্রী প্রদীপ কুমার ভট্টাচার্য, শ্রীমা সারদা সংঘের সম্পাদিকা শ্রীযুক্তা বীথিকা দত্ত, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার শ্রী পুলিন রায়, প্রভাষক দীপক চন্দ্র, হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি প্রকৌশলী পি. কে চৌধুরী। এসময় প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাগীশিক কেন্দ্রীয় সংসদের সাধারণ সম্পাদক ডা. অঞ্জন কুমার দাশ, স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাগীশিক সিলেট জেলা সংসদের সাধারণ সম্পাদক সুমন চক্রবর্তী। এছাড়াও সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন দূর্গা কুমার দাশ, ডা. নকুল কুমার বিশ্বাস, সঞ্জয় দাশ, গোপালচন্দ, রজত চক্রবর্তী, হরিপ্রসন্ন চক্রবর্তী, মতিলালবাবু, ডা. বীরেন্দ্র চন্দ্র দেব, শ্রী নীরেশ দাস, এডভোকেট বিশ্বজিৎ ঘোষ, ডা. দিলীপ দাস, শ্রাবন্তী দাস, বিজু লাল দে, অশোক দেব, শ্রীবাস ব্যানার্জী শিবা, বনমালী ভট্টাচার্য, বিনয় ভূষণ তালুকদার, শিলা চৌধুরী, তপন মিত্র, ভজন লাল দাস,শ্রীদাম দাস, শ্রী দীপক চন্দ্র শীল, সুজাতা দে, পলাশ দাস, ডা. শিবানী আচার্য্য, ডা. বাবলী রাণী সিনহা, কল্লোল সেন, প্রকৌশলী সুমন সেন,শ্রী যিশু সেন, শ্রী পার্থ সারথী আইচ, লায়ন শ্রী দিলীপ কুমার শীল ও তপন কান্তি ধর, সম্পা দাস, ডা. শুক্লা দাস, ডা. সুপ্তা, ডা. পলি, ডা. সুপান্তি, ডা. বিকাশ চক্রবর্তী, ডা. স্বপ্না আচার্য্য, ডা. তাপস কান্তি দে, প্রঞ্জা দে, রিংকু দে ,ধনঞ্জয় দাস ধনু, ত্রিদিব দে প্রমুখ। সম্মেলন শেষে অভিষেক এবং মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বশেষ ২৪ খবর