তারেকের ভিডিও কনফারেন্স আচরণবিধি লঙ্ঘন নয় : ইসি

প্রকাশিত: 3:56 PM, November 19, 2018

তারেকের ভিডিও কনফারেন্স আচরণবিধি লঙ্ঘন নয় : ইসি

ডেস্ক প্রতিবেদন

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমান কর্তৃক লন্ডন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে দলের মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাাৎকার গ্রহণ নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের মধ্যে পড়ে না বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ।

সোমবার সন্ধ্যায় রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান।

ইসি সচিব বলেন, ‘তারেক রহমান দেশের বাইরে রয়েছেন। তিনি অনলাইনের মাধ্যমে তাদের প্রার্থীদের সঙ্গে কথা বলছেন। এতে ইসির কিছু করণীয় নেই।’

এর আগে, গতকাল প্রার্থী বাছাইয়ের সাাৎকারে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে তারেক রহমানের অংশগ্রহণের বিষয়ে ইসিতে অভিযোগ জানায় আওয়ামী লীগ। ওই দিন সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগের প্রতিনিধিদল নির্বাচন কমিশন অফিসে গিয়ে এ অভিযোগ করে।

অবশ্য এর আগে নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, ‘তারেক রহমানের বিষয়ে কোনো অভিযোগ পেলে কমিশন বৈঠক করে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেবে।’

নয়াপল্টনের সংঘর্ষ ফৌজদারি অপরাধ :
মনোনয়ন ফরম সংগ্রহকে কেন্দ্র করে নয়াপল্টনে পুলিশের সঙ্গে বিএনপির নেতাকর্মীদের সংঘর্ষের বিষয়ে হেলালুদ্দীন বলেন, ‘গত ১৪ নভেম্বর নয়াপল্টনে অনাকাঙ্তি ঘটনার অডিও, ভিডিও ও স্টিল ছবিসহ বিস্তারিত প্রতিবেদন আইজিপির কাছে চাওয়া হয়েছিল। তিনি প্রতিবেদন দিয়েছেন। এতে দেখা যায়, পল্টনের ঘটনায় ফৌজদারি অপরাধ হয়েছে। এ ঘটনার তদন্ত চলতে আপত্তি নেই। এতে বাধা দেবে না ইসি।’

তিনি বলেন, ‘তবে এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত নয় এমন ব্যক্তিদের অহেতুক হয়রানি না করতে আইজিপিকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।’

পোস্টারে খালেদা-তারেকের ছবিতে বাধা নেই :
দুর্নীতির মামলায় খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের সাজা হয়েছে। তাদের ছবি দলীয় প্রধান হিসেবে প্রার্থীরা পোস্টারে ব্যবহার করতে পারবেন কি না জানতে চাইলে ইসি সচিব বলেন, ‘ব্যবহার করতে চাইলে পারবেন। এটা রাজনৈতিক দলের দলীয় সিদ্ধান্ত। আইনে কোনো সমস্যা নেই।’

এ সময় বিএনপির দেয়া মামলা-গ্রেফতারের তালিকার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘বিএনপির তালিকায় ৮ নভেম্বরের আগের কিছু ঘটনা রয়েছে। সেগুলোর বিষয়ে ইসির কিছু করার নেই। তবে তফসিলের পরেরগুলো সম্পর্কে বিএনপি বিস্তারিত বর্ণনা না করায় এ বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। পরে এ বিষয়ে আলোচনা করা হবে।’

৯০ শতাংশ প্রচারণা সামগ্রী সরেছে :
আগাম নির্বাচনী প্রচারণা অপসারণের বিষয়ে ইসি সচিব বলেন, সারা দেশ থেকে এরই মধ্যে প্রায় ৯০ শতাংশ আগাম নির্বাচনী প্রচারণা সরানো হয়েছে বলে সংশ্লিষ্টদের কাছ থেকে জানতে পেরেছি। যারা এখনও সরারনি, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়ে সেগুলো সরাতে আজ সংশ্লিষ্টদের চিঠি দেয়া হয়েছে।

নির্বাচনী আচরণবিধি মানা হচ্ছে কি না তা দেখার জন্য এরই মধ্যে প্রতি উপজেলায় একজন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বশেষ ২৪ খবর