বাংলাদেশ ব্যাংক’র নির্বাহী পরিচালকের সাথে চেম্বার নেতৃবৃন্দের মতবিনিময়

প্রকাশিত: 5:07 PM, November 6, 2018

বাংলাদেশ ব্যাংক’র নির্বাহী পরিচালকের সাথে চেম্বার নেতৃবৃন্দের মতবিনিময়

ডেস্ক প্রতিবেদন
বাংলাদেশ ব্যাংক, সিলেটের নবনিযুক্ত নির্বাহী পরিচালক সৈয়দ তারিকুজ্জামান এর সাথে সিলেট চেম্বার নেতৃবৃন্দের এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টায় চেম্বার কার্যালয়ে দি সিলেট চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি’র উদ্যোগে চেম্বার হলে এ মতবিনিময় অনুষ্ঠিত হয়।
সিলেট চেম্বারের সভাপতি খন্দকার সিপার আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় সৈয়দ তারিকুজ্জামান বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংক সবসময় ব্যবসায়ীদের পাশে রয়েছে। ব্যবসায়ীদের ক্ষতি হয় এমন কোন সিদ্ধান্ত বাংলাদেশ ব্যাংক কখনই গ্রহণ করবে না। তিনি বলেন, বাংলাদেশ সরকারের ট্রেজারী বিভাগ সোনালী ব্যাংক-কে ট্রাভেল ট্যাক্স গ্রহণের অনুমতি দিয়েছে, তাই আমরা চাইলেও সকল ব্যাংকে ট্রাভেল ট্যাক্স গ্রহণের ব্যবস্থা করতে পারি না। সেক্ষেত্রে তিনি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনাক্রমে তামাবিল স্থলবন্দরে সোনালী ব্যাংকের বুথ স্থাপনের আশ্বাস প্রদান করেন। তিনি সিঙ্গেল ডিজিটে রাষ্টায়ত্ত ব্যাংক থেকে ঋণ সুবিধা গ্রহণের আহবান জানান। এছাড়াও তিনি চেক কিয়ারিং এর ক্ষেত্রে ফোনের পাশাপাশি এসএমএস সিস্টেম চালু এবং আরটিজিএস সার্ভিস যথাশীঘ্র চালুর লক্ষ্যে কাজ করার আশ্বাস প্রদান করেন। তিনি জানান, কোন ব্যাংক থেকে গ্রাহকদেরকে যাতে ছেড়া ও পুরাতন নোট সরবরাহ করা না হয় সেব্যাপারে ইতোমধ্যে সকল ব্যাংকে নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। তিনি সিলেট চেম্বার ও ব্যবসায়ীদের উত্থাপিত সমস্যাবলী নিয়ে সকল তফসিলি ব্যাংকের কর্মকর্তাদের সাথে আলোচনাক্রমে তা সমাধানের উদ্যোগ গ্রহণ করবেন বলে আশ্বস্থ করেন।

সভাপতির বক্তব্যে সিলেট চেম্বারের সভাপতি খন্দকার সিপার আহমদ মতবিনিময় সভায় মিলিত হওয়ার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক, সিলেটের নবনিযুক্ত নির্বাহী পরিচালককে ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, সিলেটের ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন সমস্যাবলী নিরসনে সিলেট চেম্বার কাজ করে থাকে। ব্যাংকিং খাতে ব্যবসায়ীরা কিছু সমস্যার শিকার হচ্ছেন। তিনি বলেন, তিনি সিলেটের শেওলা ও তামাবিল এলসি স্টেশনে সোনালী ব্যাংকের বুথের ব্যবস্থা করা, চেক কিয়ারিং এর ক্ষেত্রে ফোনের পাশাপাশি এসএমএস সিস্টেম চালু করা, ব্যাংক গ্যারান্টির সাথে সাথে আনডেটেড চেক গ্রহণ না করা সহ বিভিন্ন প্রস্তাব তুলে ধরেন। সভায় বক্তারা পজেটিভ পে-স্লিপ প্রদান, আরটিজিএস চালু এবং ইএফটি সেবার মান বৃদ্ধি ও সকল তফসিলি ব্যাংকে সুইফট ট্রান্সফার এর ব্যবস্থা গ্রহণের আহবান জানান।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশ ব্যাংকের জিএম শ্রী জীবন কৃষ্ণ রায়, ডিজিএম শামীমা নার্গিস, সোনালী ব্যাংকের জিএম মোঃ আশরাফ উল্লাহ্, জনতা ব্যাংকের জিএম মোহাম্মদ রিয়াজুল ইসলাম, অগ্রণী ব্যাংকের ডিজিএম মোঃ আজিজুল হক, বাংলাদেশ ব্যাংক, সিলেটের যুগ্ম পরিচালক মোজতবা রুম্মান চৌধুরী, উপ-পরিচালক শ্রী রতেœশ্বর ভট্টাচার্য্য, সিলেট চেম্বারের সিনিয়র সহ সভাপতি মাসুদ আহমদ চৌধুরী, সহ সভাপতি মোঃ এমদাদ হোসেন, মোঃ সাহিদুর রহমান, নুরুল ইসলাম, পরিচালক এবং ব্যাংক ও ইন্সুরেন্স সাব কমিটির যুগ্ম আহবায়ক আমিরুজ্জামান চৌধুরী, এহতেশামুল হক চৌধুরী, আব্দুর রহমান, ফালাহ উদ্দিন আলী আহমদ, সিলেট চেম্বারের সদস্য আলীমুল এহছান চৌধুরী, জুবায়ের রকিব চৌধুরী, সামিয়া বেগম চৌধুরী, মোঃ শফিকুল ইসলাম প্রমুখ।

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বশেষ ২৪ খবর