মুজিবর্ষ উদযাপনে স্বাগতম মানবতার দিশারী কানাডার প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত: 1:03 PM, February 6, 2020

মুজিবর্ষ উদযাপনে স্বাগতম মানবতার দিশারী কানাডার প্রধানমন্ত্রী

জে.এ কাজল খান
আড়ম্বর অনুষ্ঠানের মধ্যদিয়ে আগামী ১৭ মার্চ বাংলাদেশে উদযাপিত হচ্ছে মুজিব বর্ষ । উদযাপন অনুষ্ঠানে যোগ দিচ্ছেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী-সহ বিশ্বনেতারা। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ.কে মোমেন গত ৭ জানুয়ারি এ ঘোষনা দেন। অনুষ্ঠানে মানবাধিকার ও ধর্মীয় সম্প্রীতির সুতিকাগার কানাডার প্রধানমন্ত্রী, মানবতার দিশারী জাস্টিন ট্রুডো’র আগমন সংবাদে আনন্দে উদ্বেলিত দেশের আপামর জনতা। দেশের আবাল বৃদ্ধ বণিতা-সহ সবার চোখে-মূখে আনন্দের ছাপ। বিশ্বের সর্বত্র যেখানে মানবতা ভূলু›িঠত সেখানে মানবপ্রেমের শীর্ষে থাকা কানাডার পরপর দু’বারের প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন পিয়েরে জেমস ট্রুডো’র পদধূলিতে বাংলাদেশ হবে ধন্য। দেশের মানুষ গাইবে মানবতার বিজয়ের গান। জাস্টিন ট্রুডো’র পিতা পিয়ের ট্রুডোও ছিলেন একসময় কানাডার প্রধানমন্ত্রী। ১৯৭১সালের ২৫ শে ডিসেম্বর বড়দিনে রাজধানী অটোয়ায় জন্ম নেয়া জাস্টিন ট্রুডো’ কানাডার পরপর দ্বিতীয়বারের সবচেয়ে কমবয়েসী প্রধানমন্ত্রী। ধর্মবর্ণ নির্বিশেষে সব শ্রেণি ও পেশার মানুষের ভালোবাসা কুড়িয়ে পরপর কানাডার দুবারের প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন তিনি। বিশ্বমানুষের শান্তিনিবাস করে কানাডাকে গড়তে তার ভূমিকা সারা বিশ্বে নন্দিত। নিজ দেশের বাইরে বিশ্বের যে কোন স্থানে যে কোন ধর্ম ও বর্ণের নিপীড়িত নির্যাতিত এবং অসহায় মানুষের শেষ আশ্রয়স্থল কানাডা। এধরনের একটি শান্তিময় অনাবিল দেশ গড়া তাঁর পক্ষেই সম্ভব হয়েছে বলেই তিনি আজ বিশ্বনন্দিত, বিশ্বমানুষের প্রাণপ্রিয় এক বিশ্বনেতা। ধর্মীয়,জাতিগত ও রাজনৈতিক বিদ্বেষে দেশত্যাগী মানুষকে তাঁর দেশে স্বাগত জানিয়ে বিশ্বমানতার রোল মডেল হয়েছেন তিনি। যুক্তরাষ্ট্রের বর্তমান প্রেসিডেণ্ট ডোনাল ট্রাম্প যখন ৭টি মুসলিম দেশের মানুষের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করেন, ঠিক তখনই মানবতার দিশারী জাস্টিন ট্রুডো বিশ্বের শরণার্থীদেরকে তাঁর দেশ কানাডায় স্বাগত জানান।
ধর্মীয় দিক থেকে খ্রীস্টান পরিবারে জন্ম নেয়া কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো নিইজিল্যান্ডের মসজিদে মুসলিম হত্যাকান্ডে চোখের জল মুছেছেন। তাকিয়ে দেখেছেন বিশ্ববাসী । রোহিঙ্গাদের নির্যাতন ধর্ষণ হত্যা ও নির্বাসন প্রশ্নে মানবতার পক্ষে দাঁড়িয়ে এবং নিপীড়ক মিয়ানমারের বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে সর্বধর্মীয় প্রীতি ও সম্প্রীতির এক উজ্জল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন বিশ্বনন্দিত এই নেতা। নিজ মূখে সালাম জানিয়ে বিশ্বমুসলিমদের ঈদ শুভেচ্ছা জানিয়েছেন তিনি। ২০১৯ সালের আগস্টে পবিত্র ঈদ উল আজহা উপলক্ষে মুসলিমদের শুভেচ্ছা জানিয়ে এক অনাবিল দৃষ্টান্ত করেছেন এবং তখনকার দিনে কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো বলেন, ‘কানাডা ও বিশ্বজুড়ে মুসলিমদের শুভেচ্ছা জানাচ্ছি যারা ঈদুল আজহা উদযাপন করছেন। ঈদ মোবারক! এক ভিডিও বার্তায় জাস্টিন ট্রুডো বলেন, আসসালামু আলাইকুম। আজ কানাডা ও বিশ্বের মুসলমানরা হজ্জ পালন ও ঈদ উৎসব করছেন। এই পবিত্র দিনটি হলো প্রার্থনার জন্য সবার একত্রিত হওয়ার, একসঙ্গে খাবার খাওয়ার এবং জীবনের অনুগ্রহকে উদযাপন করার সময়। এটা কোরবানির শিক্ষা, মূল্যবোধ, করুণা, উদারতার প্রতিফলন ঘটনানোর বড় সুযোগ।’
জাস্টিন ট্রুডো বলেন, ‘আজ কানাডীয় মুসলমানদের ঈদ উদযাপন করার দিন। আমাদের দেশটি গড়তে তারা প্রচুর অবদান রেখেছেন। সবাই চমৎকার ঈদ উদযাপন করবেন, সেই কামনা করছি।’
কানাডার মত বিশাল ও বৈচিত্রময় দেশে সাধারণ মানুষের মত মানুষের সাথে মিশে থাকা,সব শ্রেণি-পেশার মানুষের সাথে বন্ধুত্বসূলভ সমান আচরণ ও ভালোবাসার দৃষ্টান্ত একমাত্র তিনিই স্থাপন করে চলেছেন।
আমরা মানবতাবাদী এ মহা রাস্ট্রনায়কের বাংলাদেশ আগমণকে জানাই সুস্বাগতম।

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বশেষ ২৪ খবর