রোপা আমনের বাম্পার ফলন : গোয়াইনঘাটে নবান্ন উৎসব

প্রকাশিত: 12:50 PM, December 9, 2019

রোপা আমনের বাম্পার ফলন : গোয়াইনঘাটে নবান্ন উৎসব

গোয়াইনঘাট প্রতিনিধি : গোয়াইনঘাট-জৈন্তাপুরের মাঠ জুড়ে সোনালী হাসি। ঘরে ঘরে ব্যস্ত কৃষানীর মুখেও আনন্দ। ফসলের বাম্পার ফলনে তারা তৃপ্ত। সোনালী ফসলে ভরে উঠছে কৃষকের গোলা। ঘরে ঘরে ব্যস্ত কৃষানীরা ধান সংগ্রহে। এখন পুরোদমে চলছে ধান কাটা আর মাড়াইয়ের কাজ। মাঠের পর মাঠ পেরিয়ে দেখা যায় শুধু সোনালী ফসলের হলদে হাসি। রোপা আমনের বাম্পার ফলনে উৎসবের আমেজ গোটা উত্তর সিলেট জুড়ে। বিশেষ করে গোয়াইনঘাট-জৈন্তাপুর উপজেলার সবকটি হাওর ও আশপাশের ফসলী জমিগুলোতে এবার রোপা আমনের বাম্পার ফলন হয়েছে।

মৌসুম শুরুর আগে একাধিকবার পাহাড়ী ঢল, বন্যা, ঘুর্নিঝড় আর প্রাকৃতিক দুর্যোগ কাটিয়েও এবারের রোপা আমনের ফলন কৃষকদের সকল কষ্টকে ভুলিয়ে দিয়েছে। এবার গোয়াইনঘাট উপজেলায় রোপা আমনের লক্ষমাত্রা ছিলো ১৫ হাজার ৭শত হেক্টর জমি। আর এসব জমি থেকে প্রায় ৩৫ থেকে ৪০ হাজার মেট্রিকটন ধান উৎপাদনের সম্ভাবনা রয়েছে। অপর দিকে জৈন্তাপুর উপজেলায় হেক্টর জমিতে লক্ষমাত্রা ছিলো ১০ হাজার ৮শত ৪৫ হেক্টর জমি। কিন্তু চাষাবাদ ছাড়িয়ে যায় ১১ হাজার ৪শত ১০ হেক্টর জমি।
আর এসব জমি থেকে ৪২ হাজার ৮শত ৮৭মেট্রিকটন ধান উৎপাদন হবে বলে জানায় উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর। সরজমিনে পরিদর্শনকালে গোয়াইনঘাট ও জৈন্তাপুরের ফসলের মাঠজুড়ে রোপা আমনের বাম্পার ফলনের চিত্রটি দেখা যায়। গোয়াইনঘাট ও জৈন্তাপুরের উপজেলা দুই নির্বাহী অফিসাদের সরাসরি তদারকি এবং কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা উভয় উপজেলার কৃষকদের মাঝে একাধিক কৃষক সমাবেশ করেন। প্রশিক্ষনের পাশাপাশি তাদেরকে ভালো বীজ,সার ব্যবহারে পরামর্শ দেয়া হয়।
প্রশাসন তরফে স্থানীয় জাতের রোপা আমনের পরিবর্তে বন্যাসহ প্রাকৃতিক দুর্যোগ সহনীয় ও বেশি ফলনশীল উপসি জাতের রোপা আমন চাষে উৎসাহিত করা হয়। এবার আবহাওয়া প্রায় অনুকুলে থাকার কারণে রোপা আমনের অতিতের সকল রেকর্ড ছাড়িয়ে বাম্পার ফলন হয়েছে এবং এ মৌসুমে উৎপাদিত ধানের শতভাগ ঘরে তুলা সম্ভব বলে ধারনা কৃষি বিভাগের।সরজমিনে পরিদর্শনকালে চোখে পড়ে গোয়াইনঘাটের লেঙ্গুড়া ,ডৌবাড়ি, রুস্তমপুর, আলীরগাও, পুর্ব জাফলং,পশ্চিম জাফলং,তোয়াকুল, নন্দিরগাও ইউনিয়ন ও জৈন্তাপুরের দরবস্ত, জৈন্তাপুর, চারিকাটা, ফতেহপুরের বিস্তৃত ফসলের মাঠ জুড়ে ধান আর ধান।
সোনালী রংয়ের ফসলের মাঠ জুড়ে কৃষকের মুখে তৃপ্তির হাসি। আনন্দ,উল্লাসে চলছে ধান কাটা ও মাড়াইয়ের কাজ। বেশিরভাগ এলাকায় চাষিদের পাশাপাশি শ্রমিক লাগিয়েও চলছে ধান কাটা ও মাড়াইয়ের কার্যক্রম। কোথাও কোথাও সরকারের ভুর্তুকির সুবিধায় পাওয়া কম্পাইন্ড হারভেষ্টার মেশিনেও চলছে ধান কাটা,মাড়াই ও ধান বস্তাবন্দি করার চিত্রও চোখে পড়ে। মাঠজুড়ে চোখে পড়ে ধান উৎসবের আনন্দঘন পরিবেশ। বাড়ি থেকে পাঠানো বিন্ন ভাত আর ঝাল মাংসের ঝুল দিয়ে ক্ষেতের আলে বসেই কেউ কেউ দুপুরের আহার সারছেন। ধান কাটার সময় পালা করে বাউল,জারি,ভক্তিমুলক বিভিন্ন ধরণের গান গাইতেও দেখা যায় কৃষকদের। সরজমিন পরিদর্শনকালে কোথাও কোথাও ধানকাটা শ্রমিক সংকটের বিষয়টি চোখে পড়ে।
২ ডিসেম্বর গোয়াইনঘাটের ডৌবাড়ি ও ৩ ডিসেম্বর পুর্ব জাফলং ভিত্রিখেল হাওর পরিদর্শনকালে দেখা যায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিশ্বজিত কুমার পাল নিজে উপস্থিত থেকে সরকারের ভুর্তুকির সুযোগে ক্রয়কৃত কম্বাইন্ড হারভেষ্টার মেশিন দিয়ে কৃষকদের ডিজিটাল (যান্ত্রিক) পদ্ধতিতে ধান কাটা,মাড়াই ও ধান বস্তাবন্ধির কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। এসময় তিনি স্থানীয় কৃষকদের বিভিন্ন সমস্যার বিষয়ে অবহিত হওয়ার পাশাপাশি কৃষি ব্যবস্থাপনা সরকারের আন্তরিকতা ও উদ্যোগের পরিসংখ্যান তুলে ধরেন। তিনি আধুনিক ও ডিজিটাল করণের বিষয়টি তুলে ধরে এ প্রক্রিয়ায় যুক্ত হতে কৃষক পরিবারের সবাইকে উদ্ধুদ্ধ করেন। ডৌবাড়ির ঘোড়াইল বাজার সংলগ্ন ধান ক্ষেতে কথা হয় কৃষক আজির উদ্দিনের সাথে। উপসি জাতের রোপা আমন ধান বুনেছিলেন এ কৃষক।
তিনি জানান,এবার তিনি ৬ বিঘা জমিতে উপসি রোপা আমনের চাষ করেছেন। ফলনও বাম্পার হয়েছে। এ জমি হতে তার ৫০ থেকে ৭০ মণ ধান পাওয়া যেতে পারেন বলে তিনি জানান। পশ্চিম জাফলং ইউনিয়নের ইসলামাবাদ গ্রামের বাসিন্দ জমির উদ্দিন জানান,তিনিও কৃষি বিভাগের তথ্যাবদানে ১০ বিঘার মতো জমিতে এবার উপসি রোপা আমন বুনেছেন। ফলনও বাম্পার হয়েছে। এবার তার জমি থেকে ৮০ থেকে ১০০ মণ ধান পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে তিনি জানান। জৈন্তাপুর উপজেলার দরবস্ত চাল্লাইন গ্রামের কৃষক সিরাজুল ইসলাম এবং সারীঘাট রনিফৌদের কৃষক জামাল উদ্দিনও জানান রোপা আমনের ভালো ফলন এবং ধান রোপনের সফলতার কথা। তারা জানান,সরকারের বিনা মুল্যের সার,বীজ,প্রনোদনা এবং ভুর্তুকির সুযোগে ডিজিটাল যান্তিক পদ্ধতি দেশের কৃষি ব্যবস্থায় নতুন মাত্রা যুগ করেছে। এ ধারা অব্যাহত থাকলে এখানকার কৃষি ব্যবস্থাপনা আরও প্রসারিত হবে,কৃষকরা উপকৃত হবে। পতিত জমিগুলো চাষাবাদের আওতায় আসলে কৃষিতে বিপ্লব ঘটবে।
গোয়াইনঘাটের উপজেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক কামরুল হাসান জানান গোয়াইনঘাট জৈন্তাপুর ও কোম্পানিগঞ্জের কৃষি বিপ্লবের নায়ক আমাদের অভিবাবক মন্ত্রী ইমরান আহমদ। তার প্রচেষ্টায় বিনা মুল্যে সার,বীজ,উপকরণসহ কৃষকদের কল্যানে সরকারি নানা প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে। আজকের রোপা আমনের যে মাঠভরা সফলতা তার প্রশংসার দাবিদার সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং প্রবাসীকল্যাণমন্ত্রী ইমরান আহমদ এমপি। দেশের কৃষি ব্যবস্থাপনার উন্নয়নে কৃষিবান্ধব বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকারের সময়পযোগি ইতিবাচক ভুমিকা জনসাধারণের কাছে প্রশংসিত হচ্ছে।এব্যাপারে কথা হলে জৈন্তাপুর উপজেলায় কর্মরত ও গোয়াইনঘাটের (ভারপ্রাপ্ত) উপজেলা কৃষি কর্মকতা ফারুক হোসাইন জানান,গোয়াইনঘাট ও জৈন্তাপুরে সর্বকালের রেকর্ড পরিমাণ রোপা আমন চাষ হয়েছে। এবার অত্রাঞ্চলে ২৬ হাজার হেক্টর জমিতে স্থানীয় উপসি জাতের রোপা আমন চাষ হয়েছে। বন্যা ও পরিবেশ সহনীয় জাতের উপসি রোপা আমন চাষে উৎসাহিত হওয়ায় বাম্পার ফলনও হয়েছে। অতিতের সকল রেকর্ডভঙ্গ করে এবারই হয়তো সবচেয়ে বেশি ধান উৎপাদনের নজির গড়ছে এ দুই উপজেলায়। এবার ৭৭ থেকে ৮০ হাজার মেট্রিক টন এ দুই উপজেলা থেকে উৎপাদনের সম্ভাবনা রয়েছে।

গোয়াইনঘাটের উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিশ্বজিত কুমার পাল জানান, এটা সর্বকালের রেকর্ড অতিক্রম করেছে গোয়াইনঘাট ও জৈন্তাপুরের কৃষি ব্যবস্থাপনায়। কৃষি বান্ধব এই সরকার কৃষকের পাশে আছে,এবং তাদের কল্যানে আন্তরিকতার সহিত কাজ করছে। সরকারের প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী ইমরান আহমদ এমপির নিজের প্রচেষ্টায় অত্রাঞ্চলের কৃষকদের বিনামুল্যে সার, বীজ প্রদান করা হয়েছে। কৃষকের দোড়গোড়ায় পৌছে দেয়া হচ্ছে আধুনিক যন্ত্রপাতি। পতিত জমিগুলোকে চাষাবাদের আওতায় এনে সেখানে ফসল আবাদের উপযোগী করতে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। বন্যা ও পরিবেশ সহনীয় বেশি ফলনযোগ্য ধান উৎপাদনে কৃষকদের উৎসাহিত করায় এমন বাম্পার ফলন সম্ভব হয়েছে।
উপজেলা জুড়ে কৃষকদের রোপিত ফসল ঘরে তুলতে যে কোন ধরণের সহযোগিতায় প্রশাসনের কর্মকর্তারা মাঠে রয়েছেন। কৃষি বান্ধব সরকারের নীতিগত সিদ্ধান্তনুসারে এবার গোয়াইনঘাট থেকে কৃষকের উৎপাদিত ধানের ন্যায্যমুল্য নিশ্চিত করণে এবার গোয়াইনঘাট থেকে সরকার ২৬ টাকা দরে ১৫ শত ৪৩ মেট্রিকটন ধান সংগ্রহ করবে। সরকারের প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী ইমরান আহমদ এমপি বলেন, বাংলাদেশের কৃষক আর কৃষি ব্যবস্থাপনার পরম বন্ধু প্রধানমন্ত্রি শেখ হাসিনা। তার নিজস্ব চিন্তা চেতনা থেকে কৃষকদের বাচাতে নেয়া হয়েছে নানা উদ্যোগ। কৃষকদের মাঝে নিামুল্যে সার,বিজ ও ভুর্তুকির আওতায় সহজ শর্তে কৃষি উপকরণ কৃষকের দোড়গোড়ায় পৌছে দেয়ায়ই দেশের কৃষকরা আজ সফলতা পাচ্ছেন। আমাদের এলাকার কৃষকের জন্য আমি যা করেছি তা তারা অবগত আছে। আমি তাদের পাশে ছিলাম,তাদের কল্যাণে ভবিষ্যতেও আমি নিরলসভাবে কাজ করে যাবো।

  •  

সর্বশেষ ২৪ খবর