৬ বলে ৬ ছক্কার রেকর্ড কিউই ব্যাটসম্যানের

প্রকাশিত: 4:38 PM, January 5, 2020

৬ বলে ৬ ছক্কার রেকর্ড কিউই ব্যাটসম্যানের

ক্রীড়া ডেস্ক :: ব্যাট হাতে ৬ বল খেলে মাত্র ৭ রানে আউট হয়েছিলেন নর্দার্ন ডিস্ট্রিকসের বাঁহাতি ওপেনার অ্যান্টন ডেভিচ। ব্যাট হাতে যে কারো খারাপ দিন আসতেই পারে। তাই অল্পে আউট হওয়ায় খুব একটা সমস্যা ছিলো না ডেভিচ বা তার দলের। কিন্তু বল হাতে যা হলো ডেভিচের সঙ্গে, তা রীতিমতো ইতিহাসের পাতায় বসিয়ে দিয়েছে ক্যান্টাবুরির বাঁহাতি তরুণ লিও কার্টারকে।

 

চলছে নিউজিল্যান্ডের ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট সুপার স্ম্যাশ। আসরের ২২তম ম্যাচে ব্যাট হাতে রীতিমতো ইতিহাস গড়েছেন ২৫ বছর বয়সী বাঁহাতি মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান লিও কার্টার। অ্যান্টন ডেভিচের করা এক ওভারে হাঁকিয়েছেন ৬ বলে ৬টি ছক্কা। দলকে এনে দিয়েছেন ২১৯ রানের বিশাল লক্ষ্য তাড়া করে দারুণ এক জয়।

 

ঘটনা ক্যান্টাবুরি ও নর্দার্ন ডিস্ট্রিকসের মধ্যকার ম্যাচের দ্বিতীয় ইনিংসের ১৬তম ওভারের। বোলিং করতে আসেন নিজের প্রথম তিন ওভারে ২৫ রান খরচ করা ডেভিচ। স্ট্রাইকে ছিলেন তখন পর্যন্ত ১২ বলে ১১ রান করা বাঁহাতি কার্টার। ক্যান্টাবুরিকে জয়ের জন্য করতে হতো ৩০ বলে ৬২ রান।

 

১৬তম ওভারে যথাক্রমে ডিপ স্কয়ার লেগ, ডিপ মিড উইকেট, ডিপ মিড উইকেট, ডিপ স্কয়ার লেগ, লং অন ও ডিপ স্কয়ার লেগ দিয়ে উড়িয়ে সীমানা ছাড়া করেন কার্টার। ওভারের শুরুতে যেখানে তার সংগ্রহ ছিলো ১২ বলে ১১, সেখানে তার ব্যক্তিগত সংগ্রহ গিয়ে পৌঁছায় ১৮ বলে ৪৭ রানে। জয়ের সমীকরণও নেমে আসে ২৪ বলে ২৬ রানে।

 

স্বীকৃত ক্রিকেট ইতিহাসের মাত্র সপ্তম ক্রিকেটার হিসেবে ছয় বলে ছয় ছক্কা হাঁকানোর নজির এটি। তার আগে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে স্যার গ্যারি সোবার্স (১৯৬৮) ও রবি শাস্ত্রি (১৯৮৫), আন্তর্জাতিক ওয়ানডেতে হার্শেল গিবস (২০০৭), আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে যুবরাজ সিং (২০০৭) এবং ঘরোয়া টি-টোয়েন্টিতে রস হোয়াইটলি (২০১৭) ও হযরতউল্লাহ জাজাই (২০১৮) এক ওভারে ছয় ছক্কা হাঁকানোর কৃতিত্ব গড়েন।

 

কার্টারের ঝড় তোলা সেই এক ওভারের সুবাদেই মূলত ১৮.৫ ওভারে ২১৯ রানের বিশাল লক্ষ্য ছাড়িয়ে জয় পায় ক্যান্টাবুরি। ছয় বলে ছয় ছক্কা হাঁকানো কার্টার ৩ চার ও ৭ ছয়ের মারে ২৯ বলে ৭০ রানে অপরাজিত থেকে দলের জয় নিশ্চিত করেন। অধিনায়ক কোলি ম্যাককঞ্চি ৪ চার ও ৩ ছয়ের মারে ২৫ বলে ৪৯ রানে অপরাজিত ছিলেন।

 

কার্টার ও ম্যাককঞ্চির অবিচ্ছিন্ন চতুর্থ উইকেটে মাত্র ৫১ বলে আসে ১১৮ রান। এছাড়া ওপেনার চাদ বোজ ৩১ বলে ৫৭ রান করে দলের জয়ে অবদান রাখেন। ক্যান্টাবুরি পায় ৭ উইকেটের জয়।

 

এর আগে প্রথমে ব্যাট করা নর্দার্ন ডিস্ট্রিকসের পক্ষে ঝড় তোলেন টিম সেইফার্ট (৩৬ বলে ৭৪) ও ডিন ব্রাউনলি (২৯ বলে ৫৫)। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ২১৯ রানের বিশাল লক্ষ্য পায় তারা। যদিও শেষতক জয় আর পায়নি।

 

  •  

সর্বশেষ ২৪ খবর